নারীপক্ষ

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রে হামলা, ভাঙচুর, লুট ও নারী শিক্ষার্থীদের লাঞ্ছনাকারীদের বিচার চাই
সব ধরনের দুর্বৃত্তায়ন ও জোরজবরদস্তি বন্ধে অবিলম্বে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে



গত ১১ কার্তিক ১৪২৫/২৬ অক্টোবর ২০১৮ সাভারের আশুলিয়ায় মির্জানগর এলাকায় একদল বহিরাগত বেসরকারি সংস্থা ‘গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র’ এর আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্র পিএইচএ ভবনে ভাঙচুর ও লুটপাটের পর গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রস্থ গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩টি ছাত্রী হোস্টেলে এবং সংস্থাটির কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বাসভবনে হামলা ও ভাঙচুর করে। তারা গণস্বাস্থ্য ফার্মাসিউটিকেলসেও হামলা চালায়। ছাত্রী হলের ভিতরে ঢুকে ছাত্রীদের অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে, চুলের মুঠি ধরে, গলাধাক্কা দিয়ে হল থেকে বের করে দেয়। ছাত্রীদের বই খাতা ও শিক্ষা উপকরণ বিনষ্ট করে। বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের ছাত্র লিমনকে মেরে হাত ভেঙ্গে দেয়।

প্রকাশ্য দিনের আলোয় কয়েকশত লোক ধারালো অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে যখন এভাবে একটি প্রতিষ্ঠানের স্থাপনায় হামলা চালায় তখন প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার লোকজনকে জানিয়েও কোনো সহায়তা পাওয়া যায়নি, এমনকি হামলাকারীরা যখন এলাকাটি ঘিরে রাখে, তখনো পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়নি। নারীপক্ষ এই সমগ্র ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছে এবং পুলিশ প্রশাসনের নিস্ক্রিয় ভূমিকারও কঠোর নিন্দা করছে।

১৯৭১ এর রণাঙ্গনে যুদ্ধাহতদের চিকিৎসার্থে গড়ে তোলা বাংলাদেশ ফিল্ড হাসপাতালের উত্তরসূরি আজকের ‘গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র’। ‘গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র’ স্বল্প আয়ের মানুষের একটি বিশ্বস্ত স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠান। এটি জনগণের প্রতিষ্ঠান, কাজেই রাষ্ট্রের দায়িত্ব- উক্ত প্রতিষ্ঠানে হামলার সাথে জড়িত দুষ্কৃতকারীদের চিহ্নিত করে তাদের বিচারের আওতায় আনা এবং যাবতীয় ক্ষতিপূরণ দেয়া। প্রতিষ্ঠানটির ভূমি নিয়ে যদি কারো কোন অভিযোগ থেকে থাকে তা শান্তিপূর্ণ আলোচনার মাধ্যমে ও আইনি পথে সমাধানের ব্যবস্থা করা সম্ভব। কারো ব্যক্তিগত আক্রোশ বা বিদ্বেষপ্রসূততার কারণে বহিরাগত দুর্বৃত্ত দ্বারা হামলা, দখল, নারীদের উপর আক্রমণ ও লাঞ্ছনা কোন ভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়।

নারীপক্ষ সরকারের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছে:-
* আইনের দৃষ্টিতে সবাই সমান- এই সাংবিধানিক মৌল চেতনার প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয়ে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রে হামলা, ভাঙচুর, লুটপাট ও নারী শিক্ষার্থীদের লাঞ্ছনার সাথে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে যুক্ত প্রত্যেককে অবিলম্বে গ্রেপ্তার করে বিচারের আওতায় আনা হোক
* দায়িত্ব অবহেলাকারী পুলিশের বিরুদ্ধে কার্যকর ব্যবস্থা নেয়া হোক
* এই হামলার কারণে সংস্থাটির যাবতীয় ক্ষতি সম্পূর্ণরূপে পূরণ করা হোক
* ভবিষ্যতে এই ধরনের আক্রমণসহ সব ধরনের জোরজবরদস্তি বন্ধে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হোক।


দিন-তারিখ: মঙ্গলবার, ১৫ কার্তিক ১৪২৫/৩০ অক্টোবর ২০১৮