নারীপক্ষর অবস্থান কর্মসূচী

 

অদ্য ১০ ভাদ্র ১৪২৫/২৫ আগস্ট ২০১৮ বিকাল ৪.৩০ মিনিটে নারীপক্ষ কার্যালয়ের সামনে ব্যানার ফেষ্টুন নিয়ে এক বছরেও সুরাহা মেলেনি রোহিঙ্গাসংকটের বিষয়ে একটি অবস্থান কর্মসূচী পালন করা হয়। এই কর্মসূচীতে নারীপক্ষর সদস্য কর্মী ও সমমনা সংগঠন ইউথ ফর হিউম্যান রাইটস ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ এর প্রতিনিধি বৃন্দ অংশগ্রহণ করেন।  

--------------------------------------------------------------------------------------------

 
এক বছরেও সুরাহা মেলেনি রোহিঙ্গা সংকটের
 
ঘোষণাপত্র
 
২৫ আগস্ট ২০১৭ সাল, আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের তিন শতের অধিক রোহিঙ্গা অধ্যুষিত গ্রামের উপর সেনাবাহিনীর অভিযানে অগণিত রোহিঙ্গাকে খুন ও ধর্ষণ করা হয়। তাদের বাড়িঘরে অগ্নিসংযোগ করে জ্বালিয়ে-পুড়িয়ে নিশ্চিহ্ন করে দেয়া হয়। নৃশংস এই হত্যাযজ্ঞের কারণ হিসেবে অজুহাত ছিলো যে, এই অঞ্চলে কিছু রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী রয়েছে, তাদের নির্মূল করতে হবে। 
 
রোহিঙ্গা অধিকার কর্মী এবং গবেষকদের কাছে তথ্য-প্রমান আছে, এটি পরিকল্পিত গণহত্যা। জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিল, যুক্তরাষ্ট্রের স্টেট বিভাগ, আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচ ও এ্যামনেস্টি ইন্টান্যাশনাল এবং গবেষকদের কাছেও অকাট্য প্রমান রয়েছে এ ব্যাপারে। হাজার হাজার রোহিঙ্গাদের জবানবন্দী থেকেও পরিকল্পিত গণহত্যার বিষয়টি প্রতীয়মান হয়। তাদের পরিবার, বন্ধু ও সম্প্রদায়ের উপর অমানবিক আঘাতের প্রত্যক্ষ সাক্ষী এই রোহিঙ্গারা।  

১০ লাখের অধিক রোহিঙ্গা জনগণ নিজ দেশ মিয়ানমার থেকে বিতাড়িত হয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। এই জনগোষ্ঠীকে তাদের নিজ দেশে নাগরিকত্বসহ, মর্যাদার সাথে প্রত্যাবর্তনের দায়িত্ব মিয়ানমার সরকারের। মিয়ানমার সরকার যাতে দ্রুত এর ব্যবস্থা করে তার জন্য জাতিসংঘসহ সকল আন্তর্জাতিক শক্তিকে মিয়ানমার সরকারের উপর চাপ অব্যাহত রাখতে হবে।  আমরা বিশ্বাস করি, জরুরী নিরাপত্তা, মর্যাদা, টিকে থাকা, প্রত্যাবাসন এবং নিজের মাতৃভূমিতে বসবাসযোগ্যতা- এই সবকিছুতে মিয়ানমারের অন্য নাগরিকদের মতই উত্তর রাখাইন রাজ্যের মানুষদের সমান অধিকার রয়েছে। 
আসুন, আমরা সকলে এই বিপন্ন রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর পাশে দাঁড়াই এবং তাদের উপর সংঘঠিত গণহত্যা ও অন্যান্য অপরাধের বিরুদ্ধে সোচ্চার হই।

 
নারীপক্ষ
দিন-তারিখ: শনিবার, ১০ ভাদ্র ১৪২৫/২৫ আগস্ট ২০১৮