নাসরীন হক এর ১২ তম মৃত্যু বার্ষিকী শিকড় এর নাসরীন


১১ বৈশাখ ১৪২৫/২৪ এপ্রিল ২০১৮ সন্ধ্যা ৬.৩০ মিনিটে নারীপক্ষর নাসরীন হক সভাকক্ষে নারী আন্দোলন ও মানবাধিকার কর্মী নাসরীন হক এর ১২ তম মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে শিকড় এর নাসরীন শীর্ষক অনুষ্ঠান হয়।
অনুষ্ঠানের শুরুতে সূচনা বক্তব্য রাখেন নারীপক্ষর সদস্য নাজমা বেগম। রবীন্দ্র সঙ্গীত আমি কান পেতে রই ও আমি তোমারই মাটির কন্যা পরিবেশন করেন সেঁজুতি বড়য়া। লালনগীতি মানুষ ছাড়া ক্ষ্যাপারে তুই মূল হারাবি পরিবেশন করেন হালিমা পারভীন। রিয়াজ আহমেদ এর কবিতা অসময়ে চলে যাওয়া আবৃত্তি করেন নারীপক্ষর সদস্য নাজমুন নাহার।
নাসরীন হক একটি আন্দোলনের নাম, যাঁর কন্ঠ সর্বদা স্বোচ্চার ছিলো শোষণ, নির্যাতন ও বৈষম্যের শিকার মানুষের পক্ষে। যেখানে যখনই নারীর অধিকার লঙ্ঘনের খবর পেয়েছেন, ছুটে গিয়েছেন সেখানে, ব্যবস্থা নিয়েছেন তাৎক্ষণিকভাবে এবং পরবর্তীতে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা ও তা বাস্তবায়নের পদক্ষেপ নিতে সরকারের নীতি নির্ধারনী পর্যায়ে আলোচনা করেছেন। এরকম দীর্ঘমেয়াদি কার্যক্রমের মধ্যে রয়েছে নারীর স্বাস্থ্য ও প্রজনন অধিকার, স্তন ক্যান্সার, নিরাপদ মাতৃত্ব, তামাকবিরোধী আন্দোলন, এইচআইভি আক্রান্ত নারীর অধিকার, যৌনকর্মীদের মানবাধিকার লঙ্ঘনের প্রতিবাদ, নারীর উপর সহিংসতা রোধ, ইত্যাদি। প্রসূতিমৃত্যু রোধে নাসরীন হক এর পদক্ষেপ ছিলো অত্যন্ত বলিষ্ঠ। নারীর প্রজননস্বাস্থ্য ও অধিকার নিয়ে তাঁর নিরলস প্রচেষ্টার সুফল পাচ্ছেন বাংলাদেশের অসংখ্য নারী। এসিড আক্রমণের শিকার নারীর মুখ নাসরীন হকই প্রথম জন-সম্মুখে নিয়ে এসেছিলেন।
নাসরীন হক, কান্ট্রি ডিরেক্টর, এ্যাকশনএইড এবং সদস্য নারীপক্ষ, গত ২৪ এপ্রিল ২০০৬ আনুমানিক সকাল ৯: ৪০ মিনিটে নিজ বাড়ীর গাড়ী পার্কে অফিস হতে নিতে আসা এ্যাকশনএইড -এর গাড়ী দ্বারা গুরুতর আঘাতপ্রাপ্ত হয়ে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে মারা যান।
নাসরীন হক এর স্বপ্ন বাস্তবায়নের চেষ্টায় অবিরাম লড়াই করে চলেছেন তাঁর অনেক সহযোদ্ধা। তাঁর অনুপ্রেরণায় অনুপ্রাণিত হয়ে সুবিধা বঞ্চিত নারীদের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন এমন ব্যক্তিদের মধ্যে আজকের অনুষ্ঠানে স্মৃতিচাণ করেন বরগুনার হোসনে আরা হাসি, টাঙ্গাইলের রওশন আরা লিলি, শামসুন নাহার, ঢাকা জেসমীন প্রেমা ও চট্টগ্রামের শিশির দত্ত।
স্মৃতিচারণের সময় বক্তারা বলেন, টাঙ্গাইলের তাঁত শিল্পে নারীরা কাজের বিনিময়ে যে মজুরী পায় সেটা নাসরীন হক এরই অবদান। নাসরীন হক এর সাহস, অনুভুতি, অনুপ্রেরণায় তাঁরা আজকের এই অবস্থানে। তিনি স্বপ্ন দেখতেন নারীরা ব্যবসা করবে, নিজের পায়ে দাড়াবে, নিজে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে এবং আয়ের টাকা খরচ করবে।